কিভাবে যোগব্যায়াম করবেন: জীবন পরিবর্তনকারী নির্দেশিকা

যোগ হল একটি প্রাচীন ভারতীয় অনুশীলন যা শ্বাস নিয়ন্ত্রণ, ধ্যান এবং শারীরিক অঙ্গবিন্যাসকে একত্রিত করে। যোগব্যায়ামের লক্ষ্য হল অভ্যন্তরীণ শান্তি এবং উন্নত সুস্থতা অর্জনের জন্য শরীর, মন এবং আত্মাকে একত্রিত করা। যোগব্যায়াম মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নতি, শক্তি এবং নমনীয়তা বাড়াতে এবং চাপ উপশম করতে দেখানো হয়েছে। গবেষণা আরও দেখিয়েছে যে যোগব্যায়াম হতাশা, উদ্বেগ, দীর্ঘস্থায়ী ব্যথা এবং হাঁপানির মতো অবস্থার চিকিৎসায় সহায়ক হতে পারে।


যোগ একটি 5000 বছরের পুরনো শারীরিক, মানসিক এবং আধ্যাত্মিক অনুশীলন যা ভারতে উদ্ভূত হয়েছে। ব্যুৎপত্তি সংস্কৃত "যোগ" শব্দটির একাধিক অর্থ রয়েছে। এটি সংস্কৃত "যুজ" ধাতু থেকে ব্যুৎপন্ন, যার অর্থ "নিয়ন্ত্রণ করা", "যুক্ত করা" বা "ঐক্যবদ্ধ করা"। "যোগ" শব্দটির আক্ষরিক অর্থ তাই "যুক্ত করা", "ঐক্যবদ্ধ করা", "সংযোগ" বা "পদ্ধতি"।( সোর্সঃ উইকিপিডিয়া) বিভিন্ন ধরনের যোগব্যায়াম আছে, কিন্তু সকলেরই উন্নত স্বাস্থ্য এবং সুস্থতার একই লক্ষ্য রয়েছে। যোগব্যায়াম নমনীয়তা, শক্তি এবং ভারসাম্য উন্নত করার পাশাপাশি চাপ এবং উদ্বেগ কমাতে দেখানো হয়েছে।

যোগব্যায়াম সুবিধা কি?

নিয়মিত যোগব্যায়াম করার অনেক সুবিধা রয়েছে। কিছু উল্লেখযোগ্য সুবিধার মধ্যে রয়েছে: • উন্নত নমনীয়তা • শক্তি এবং সহনশীলতা বৃদ্ধি • উন্নত শ্বাস এবং সঞ্চালন • চাপ এবং উদ্বেগ হ্রাস • ঘুমের গুণমান উন্নত • ভাল একাগ্রতা এবং ফোকাস উপরন্তু, যোগব্যায়াম অনুশীলন আপনার সামগ্রিক স্বাস্থ্য এবং সুস্থতা উন্নত করতে সাহায্য করতে পারে।

আমি কিভাবে যোগব্যায়াম শুরু করতে পারি?

যোগব্যায়াম শুরু করার বিভিন্ন উপায় রয়েছে। আপনি বেশিরভাগ জিম বা স্টুডিওতে শিক্ষানবিস ক্লাস খুঁজে পেতে পারেন। আপনি যদি বাড়িতে যোগব্যায়াম করতে চান তবে আপনি প্রচুর অনলাইন ক্লাস বা ভিডিও খুঁজে পেতে পারেন। 

সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল এমন একটি ক্লাস বা প্রশিক্ষক খুঁজে বের করা যার সাথে আপনি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন। প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করতে ভুলবেন না এবং আপনার কোন আঘাত বা স্বাস্থ্য উদ্বেগ থাকলে প্রশিক্ষককে জানান। ধৈর্য ধরুন এবং শুরুতে নিজেকে খুব বেশি চাপ দেবেন না। যোগব্যায়াম একটি আজীবন অনুশীলন যা যেকোনো স্তরে উপভোগ করা যেতে পারে।

আমার প্রথম যোগব্যায়াম ক্লাসে আমার কী আশা করা উচিত?

আপনি যদি যোগব্যায়ামে নতুন হয়ে থাকেন, তাহলে আপনার প্রথম শ্রেণী একটু ভীতিকর হতে পারে। কিন্তু চিন্তা করবেন না, বেশিরভাগ স্টুডিওই শিক্ষানবিস ক্লাস অফার করে যা সবেমাত্র শুরু করা লোকেদের জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। আপনার প্রথম যোগ ক্লাসে আপনি যা আশা করতে পারেন তা এখানে। প্রথম জিনিসটি আপনার জানা উচিত যে যোগব্যায়াম একটি প্রতিযোগিতামূলক খেলা নয়। প্রত্যেকে তাদের নিজস্ব যাত্রায়, এবং প্রত্যেকে একটি ভিন্ন স্তরে। আপনি যদি কোনও ভঙ্গি সম্পর্কে অনিশ্চিত হন তবে আপনার শিক্ষকের কাছে সাহায্য চাইতে ভয় পাবেন না। বেশিরভাগ শিক্ষানবিস ক্লাসে, শিক্ষক যোগব্যায়ামের একটি সংক্ষিপ্ত ভূমিকা এবং কিছু মৌলিক ভঙ্গি দিয়ে শুরু করবেন।

তারপরে আপনি একটি ওয়ার্ম-আপ সিকোয়েন্সের মধ্য দিয়ে যাবেন, যা আপনার পেশীগুলিকে শিথিল করবে এবং আপনাকে ক্লাসের মূল অংশের জন্য প্রস্তুত করবে। ক্লাসের প্রধান অংশটি সাধারণত ভঙ্গির একটি সিরিজ যা একে অপরের মধ্যে প্রবাহিত হয়। একে বলা হয় প্রবাহ বা ভিনিয়াস। একটি শিক্ষানবিস ক্লাসে, ভঙ্গিগুলি কম চ্যালেঞ্জিং এবং আরও অ্যাক্সেসযোগ্য হবে। ক্লাসের শেষে, সাধারণত একটি শিথিলকরণ বা সাভাসন ভঙ্গি থাকে। আপনার শরীরের কথা শুনতে এবং প্রয়োজন অনুযায়ী বিরতি নিতে ভুলবেন না। আপনি যদি অত্যধিক উদ্বিগ্ন বা অস্বস্তি বোধ করেন, অনুগ্রহ করে ক্লাস ছেড়ে যান এবং আপনার অভিজ্ঞতা সম্পর্কে আপনার শিক্ষকের সাথে কথা বলুন। যোগব্যায়াম সবসময় আরামদায়ক এবং নিরাপদ হওয়া উচিত।

কিছু সাধারণ যোগব্যায়াম ভঙ্গি কি?অনেক যোগব্যায়াম ভঙ্গি আছে যা সাধারণত করা হয়। নিম্নমুখী কুকুর, ঊর্ধ্বমুখী কুকুর, বিড়াল/গরু পোজ, এবং পর্বত ভঙ্গি হল সবচেয়ে মৌলিক এবং সাধারণ ভঙ্গি। আপনি কি অর্জন করতে চাইছেন তার উপর নির্ভর করে আরও অনেক কিছু করা যেতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, আপনি যদি নমনীয়তা বাড়াতে চান, আপনি হ্যামস্ট্রিং স্ট্রেচ বা স্কর্পিয়ন পোজ করতে চাইতে পারেন। আপনি যদি আপনার ভারসাম্য উন্নত করতে চান তবে আপনি ট্রি পোজ বা ওয়ারিয়র  চেষ্টা করতে চাইতে পারেন। 

যোগাসনের প্রকারভেদ

১. হস্ত যোগাসন- এটি সাধারণত শরীরে স্বস্তি ও মস্তিস্ককে আরাম প্রদান করে থাকে। পিঠ টানটান করে সোজা হয়ে বসে হাত দুটো ওপর দিকে করে জড়ো করে এটি করা হয়ে থাকে।

২. আয়েঙ্গার যোগাসন- এতে পদ্মাসনকে বোঝানো হয়। মস্তিষ্কে শান্তি ও চাপ কমাতে এটি খুব কার্যকরী।

৩. কুন্ডলিনী যোগাসন- তন্ত্র ও ধ্যানের মাধ্যমে সাধনা করে নিজের অন্তরের কুণ্ডলিনী শক্তিকে জাগিয়ে তোলার নাম হল কুণ্ডলিনী যোগাসন। এর দ্বারা মনের জোর ও আত্মবিশ্বাস বাড়ে।

৪. অষ্টাঙ্গনা যোগাসন- এই ধরণের যোগাসনে বেশ শারীরিক পরিচর্যা ও ব্যায়াম হয়ে থাকে। এতে ওজন কমানো ও নানারকমের শক্তি পরিচর্চযা করা যায়।

৫. বিনায়ক যোগাসন- এটি ভারতবর্ষের একটি বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি মেনে করা হয় যা বিশেষ করে বিনায়ক মহাবিদ্যালয় থেকে প্রচারিত।

৬. বিক্রম যোগাসন- এই যোগাসনে বিভিন্ন অঙ্গভঙ্গি দ্বারা গভীর নিশ্বাস নিয়ে একটি গরম তাপমাত্রার ঘরে অনুশীলন করা হয়।

৭. হট যোগাসন- বিক্রম যোগাসনের মত হট যোগাসনও গরম তাপমাত্রায় করা হয়, কিন্তু তার জন্যে যে কোনো গরম তাপমাত্রার ঘর প্রয়োজন তা নাও হতে পারে।

৮. কৃপালু যোগাসন- এটি অনেকটা হাত যোগাসনের মত। কৃপালু যোগাসনে ভগবানকে স্মরণ করে সাধনা করা হয়।

৯. জীবমুক্তি যোগাসন- ভক্তি, অহিংসা ও ধ্যান বাড়ানোর জন্যে যেই শারীরিক, নৈতিক ও আধ্যাতিক যোগাসন করা হয় তাকে বলা হয় জীবনমুক্তি যোগাসন।

১০. ইন যোগাসন- এই যোগাসন একটু ধীর গতিতে অনেক্ষন সময় নিয়ে করা হয়।

১১. রেস্টোরেটিভ যোগাসন- নতুন করে নিজের দৈহিক ও মানসিক স্থিতিকে আবিষ্কার করে সেই পথে এগোনোর নাম হল রেস্টোরেটিভ যোগাসন।

১২. মাতৃত্ব পূর্ব যোগাসন- এই ধরণের যোগাসন গর্ভাবস্থার আগে বা গর্ভাবস্থার সময় করা হয় যার ফলে পরবর্তীকালে একটি সুস্থ সবল শিশু জন্মায় ও মায়ের শারীরিক অবস্থা ভাল থাকে।

১৩. অনুসরা যোগাসন- এই যোগাসনের মাধ্যমে আধ্যাতিক চিন্তাভাবনা বাড়িয়ে তোলা হয়।

১৪. অন্যান্য অদ্ভুত প্রকারের যোগাসন- এমন অনেক যোগাসন রয়েছে যা অন্যান্য যোগাসনের তুলনায় একটু অদ্ভুত কিন্তু বেশ প্রচলিত। যেমন মধু বা মোদের সাহায্যে যোগাসন, হাসি বা কান্নার মাধ্যমে যোগাসন, কোনো পশু বা পাখির সাহায্যে যোগাসন, ইত্যাদি।

গোটা পৃথিবীতে মোট ১৪ রকমের যোগাসন চর্চা করা হয়ে থাকে। অর্থাৎ যোগাসন মোট ১৪ প্রকারের হয়ে থাকে:সোর্সঃ stylecraze

যোগ ক্লাসে আমার কী করা এড়ানো উচিত?

আপনি যদি একজন শিক্ষানবিস হন, এমনও কিছু জিনিস আপনার যোগব্যায়াম ক্লাসে করা এড়িয়ে চলা উচিত। প্রথম এবং সর্বাগ্রে, এমন একটি ক্লাসে ঝাঁপিয়ে পড়া এড়িয়ে চলুন যা আপনার বর্তমান ফিটনেস এবং অভিজ্ঞতার স্তরের জন্য খুব চ্যালেঞ্জিং। আপনি যদি একজন শিক্ষানবিস হন, তাহলে একটি শিক্ষানবিস-স্তরের ক্লাস নিতে ভুলবেন না, অথবা ক্লাস শুরুর আগে প্রশিক্ষকের সাথে আপনার অভিজ্ঞতা এবং সীমাবদ্ধতা নিয়ে আলোচনা করুন। উপরন্তু, ভঙ্গি মাধ্যমে তাড়াহুড়ো এড়িয়ে চলুন. ধীরে ধীরে এবং মননশীলভাবে সরান, এবং পরবর্তীতে অগ্রসর হওয়ার আগে প্রতিটি ভঙ্গি সঠিকভাবে শিখতে সময় নিন। আপনার শ্বাস আটকে রাখা এড়ানোও গুরুত্বপূর্ণ। পুরো ক্লাস জুড়ে গভীরভাবে এবং অবিচলিতভাবে শ্বাস নিতে ভুলবেন না। অবশেষে, আপনার সহপাঠীদের সাথে নিজেকে তুলনা করা এড়িয়ে চলুন। প্রত্যেকে তাদের নিজস্ব গতিতে চলে এবং অগ্রগতি করে, তাই অন্যের সাথে নিজেকে তুলনা করার দরকার নেই। শুধু আপনার নিজের অনুশীলনে ফোকাস করুন এবং অন্য সবাইকে তাদের কাজ করতে দিন।

আমি কি বাড়িতে যোগব্যায়াম অনুশীলন করতে পারি?

হ্যাঁ! বাড়িতে খুব সহজেই যোগ অনুশীলন করা যায়। প্রকৃতপক্ষে, অনেক লোক তাদের নিজের বাড়ির আরাম এবং গোপনীয়তায় যোগ অনুশীলন করতে পছন্দ করে। আপনার বাড়িতে যোগব্যায়াম অনুশীলন নিরাপদ এবং কার্যকর তা নিশ্চিত করতে আপনি কিছু জিনিস করতে পারেন। প্রথমে, নিশ্চিত করুন যে আপনার কাছে অনুশীলন করার জন্য একটি ভাল জায়গা আছে। স্থানটি যথেষ্ট বড় হওয়া উচিত যাতে আপনি অবাধে চলাফেরা করতে পারেন এবং বিশৃঙ্খলামুক্ত হওয়া উচিত। দ্বিতীয়ত, নিশ্চিত করুন যে আপনার সঠিক সরঞ্জাম আছে। আপনার একটি যোগব্যায়াম মাদুরের পাশাপাশি কিছু প্রপস যেমন ব্লক এবং স্ট্র্যাপ লাগবে। তৃতীয়ত, অনুসরণ করার জন্য একটি ভাল টিউটোরিয়াল বা ক্লাস খুঁজুন। অনলাইনে অনেক ভালো যোগব্যায়ামের নির্দেশনামূলক ভিডিও এবং ক্লাস পাওয়া যায়। একটু প্রস্তুতির সাথে, আপনি একটি নিরাপদ এবং কার্যকর ঘরোয়া যোগ অনুশীলন তৈরি করতে পারেন।
আমি যোগব্যায়াম সম্পর্কে আরও তথ্য কোথায় পেতে পারি?আপনি যোগব্যায়াম সম্পর্কে তথ্য পেতে পারেন বিভিন্ন জায়গা আছে. একটি দুর্দান্ত বিকল্প হল YogaTrail এর মতো একটি ওয়েবসাইট চেক করা, যা সারা বিশ্বে যোগব্যায়াম শিক্ষক এবং স্টুডিওগুলির একটি বিস্তৃত তালিকা অফার করে৷ আপনি বিভিন্ন ধরণের যোগব্যায়াম, যোগব্যায়ামের সুবিধা এবং কীভাবে আপনার নিজের অনুশীলন শুরু করবেন সে সম্পর্কে অনলাইনে প্রচুর তথ্য পেতে পারেন।

যোগব্যায়াম অনুশীলন করার নিয়ম

কিছু মৌলিক যোগব্যায়াম ভঙ্গি রয়েছে যা আপনার যোগ অনুশীলন শুরু করার আগে আপনার শিখতে হবে। এই ভঙ্গিগুলি আপনার শরীরকে উষ্ণ করতে এবং আপনাকে আরও চ্যালেঞ্জিং ভঙ্গির জন্য প্রস্তুত করতে সহায়তা করবে। পর্বত ভঙ্গি হল অন্য সব ভঙ্গির ভিত্তি। এটি একটি সাধারণ দাঁড়ানো ভঙ্গি যা আপনার মেরুদণ্ডকে লম্বা করতে এবং শক্তিশালী করতে সহায়তা করে। ওয়ারিয়র আমি একটি শক্তিশালী ভঙ্গি যা আপনার পাকে শক্তিশালী করে এবং আপনার পোঁদ খোলে। বিড়াল-গরু ভঙ্গি হল একটি মৃদু মেরুদণ্ডের বাঁক এবং প্রসারণ যা আপনার বুক খুলতে এবং আপনার পিঠকে প্রসারিত করতে সহায়তা করে। ডাউনওয়ার্ড ডগ হল একটি ক্লাসিক যোগব্যায়াম যা আপনার হাত এবং কাঁধকে শক্তিশালী করার সময় আপনার হ্যামস্ট্রিং এবং বাছুরকে প্রসারিত করে। ব্রিজ পোজ আপনার বুক, ঘাড় এবং মেরুদণ্ড প্রসারিত করার জন্য একটি দুর্দান্ত ভঙ্গি, পাশাপাশি আপনার পাকে শক্তিশালী করে।


পদ্ম যোগ আসনের সুবিধাপদ্ম যোগ আসন যোগের ক্ষেত্রে সাম্প্রতিকতম আবিষ্কারগুলির মধ্যে একটি। খুব অল্প সময়ের মধ্যেই এটি ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছে। পদ্ম যোগ আসন ব্যবহারের বেশ কিছু সুবিধা রয়েছে। 

তাদের মধ্যে কয়েকটি নিম্নরূপ: 
1) পদ্ম যোগ আসন খুবই আরামদায়ক। এটি পুরো শরীরকে সমর্থন করে এবং যোগ অনুশীলনের সময় সঠিক ভঙ্গি বজায় রাখতে সাহায্য করে। 
2) এটি ব্যবহার করা সহজ এবং ভ্রমণের জন্য সহজেই ভাঁজ করা যায়। 
3) আসনটি উচ্চ-মানের উপকরণ দিয়ে তৈরি এবং খুব টেকসই। 
4) পদ্ম যোগ আসন শরীরের নমনীয়তা এবং শক্তি উন্নত করতে সাহায্য করে। 
5) এটি শ্বাস-প্রশ্বাসের প্রক্রিয়ার উন্নতিতেও সাহায্য করে এবং ঘনত্বের মাত্রা বাড়ায়।

কিছু মৌলিক যোগব্যায়াম ভঙ্গি রয়েছে যা আপনার যোগ অনুশীলন শুরু করার আগে আপনার শিখতে হবে। এই ভঙ্গিগুলি আপনার শরীরকে উষ্ণ করতে এবং আপনাকে আরও চ্যালেঞ্জিং ভঙ্গির জন্য প্রস্তুত করতে সহায়তা করবে। পর্বত ভঙ্গি হল অন্য সব ভঙ্গির ভিত্তি। এটি একটি সাধারণ দাঁড়ানো ভঙ্গি যা আপনার মেরুদণ্ডকে লম্বা করতে এবং শক্তিশালী করতে সহায়তা করে। ওয়ারিয়র আমি একটি শক্তিশালী ভঙ্গি যা আপনার পাকে শক্তিশালী করে এবং আপনার পোঁদ খোলে। বিড়াল-গরু ভঙ্গি হল একটি মৃদু মেরুদণ্ডের বাঁক এবং প্রসারণ যা আপনার বুক খুলতে এবং আপনার পিঠকে প্রসারিত করতে সহায়তা করে। ডাউনওয়ার্ড ডগ হল একটি ক্লাসিক যোগব্যায়াম যা আপনার হাত এবং কাঁধকে শক্তিশালী করার সময় আপনার হ্যামস্ট্রিং এবং বাছুরকে প্রসারিত করে। ব্রিজ পোজ আপনার বুক, ঘাড় এবং মেরুদণ্ড প্রসারিত করার জন্য একটি দুর্দান্ত ভঙ্গি, পাশাপাশি আপনার পাকে শক্তিশালী করে।

Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url